hasina

ঘুমের মধ্যেই চলে গেলেন জেমস বন্ড শন কনারি

14

যাকে দিয়ে রুপালি পর্দায় জেমস বন্ডের যাত্রা শুরু হয়েছিল ও যিনি এই স্পাই থ্রিলারের সাতটি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছিলেন, সেই শন কনেরি আর নেই।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বাহামা দ্বীপে অবস্থানকালে ঘুমের মধ্যেই তিনি চিরঘুমে চলে গেছেন বলে জানিয়েছে তার ছেলে।

বিবিসি জানিয়েছে, জাতিতে স্কটিশ এই অভিনেতার বয়স হয়েছিল ৯০ বছর। ‘কিছু সময় ধরে’ তিনি অসুস্থ ছিলেন বলে তার ছেলে জ্যাসন কনেরি জানিয়েছেন।

চার দশকের অভিনয় জীবন ছিল তার। ‘দ্য আনটাচেবলস’ চলচ্চিত্রে একজন আইরিশ পুলিশের ভূমিকায় অভিনয়ের জন্য ১৯৮৮ সালে শ্রেষ্ঠ অভিনেতার পুরস্কারে ভূষিত হয়েছিলেন তিনি।

১৯৬২ থেকে ১৯৮৩ সাল পর্যন্ত তিনি একটানা ইয়ান ফ্লেমিংয়ের সৃষ্ট জেমস বন্ড সিরিজের মোট ৭টি বন্ড ছবিতে অভিনয় করেছেন শন কনারি। সমালোচকদের মধ্যে তার মতো জেমস বন্ডকে রুপোলি পর্দায় আর কেউই ফুটিয়ে তুলতে পারেননি।

ড. নো (১৯৬২), ফ্রম রাশিয়া উইদ লাভ (১৯৬৩), গোল্ডফিঙ্গার (১৯৬৪), থাণ্ডারবল (১৯৬৫) এবং ইউ অনলি লাইভ টুয়াইস (১৯৬৭) বন্ড সিরিজে প্রথম পাঁচটি ছবিতে গুপ্তচর জেমস বন্ড হিসাবে দর্শক পেয়েছিল তাকে। এরপর ডায়মণ্ডস আর ফরএভার (১৯৭১) এবং নেভার সে নেভার এগেইন (১৯৮৩) ছবিতে ফের বন্ডের ভূমিকায় অভিনয় করেন তিনি।

জেমস বন্ডের চরিত্রের জন্যই তিনি পরিচিত হলেও ১৯৮৮ সালে তিনি দ্য আনটাচেবল চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য সেরা পার্শ্ব অভিনেতা হিসাবে অস্কার পুরস্কার জেনে শন কনারি। এছাড়াও মেরিন, ইন্ডিয়ানা জোন্স অ্যান্ড দ্য লাস্ট ক্রুসেড, দ্য হান্ট ফর রেড অক্টোবর, ড্রাগনহার্ট, দ্য রক প্রভৃতি উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন তারকা।

একবার অস্কার ছাড়াও তিনবার গোল্ডনে গ্লোব এবং দু’বার বাফটা পুরস্কারে সম্মানিত হয়েছে শন কনারি। ২০০০ সালে ইংল্যান্ডের রানি এলিজাবেথ তাকে নাইটহুড সম্মান দেন।