ডায়াবেটিসের লক্ষণ কি?

১৩

ডায়াবেটিসে বিভিন্ন লক্ষণ দেখা দেয়। তবে সবার ক্ষেত্রে কিন্তু লক্ষণ একরকম নয়। কারো কারো ক্ষেত্রে কোন লক্ষণই থাকেনা। আবার অনেকের লক্ষণ দেখা দিলে মানতে চান না তার ডায়াবেটিস হয়েছে। ডায়াবেটিস হওয়ার প্রথমদিকেই যদি ডায়াগনোসিস করা যায় তবে রোগীর জন্য অনেক ভাল। ভবিষ্যতে জটিলতা অনেক কমে যায়। তাই ডায়াবেটিসের লক্ষণ সবারই জানা উচিত।

বেশিভাগ সময়ই ডায়াবেটিস ধরা পড়ে অনেক দেরিতে। তখন দেখা যায় শুধু ডায়াবেটিসই নয় সাথে উচ্চ রক্তচাপও হয়েছে। এদের রক্তে চর্বিও বেড়ে যায়। ডায়াবেটিস হবার আগেই বেশ কিছু শারীরিক পরিবর্তন দেখা দেয়। এগুলো বুঝতে পারার সাথে সাথেই বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নেয়া উচিত।

ডায়াবেটিস হলে ওজন কমে যায় । ওজন কমলে অনেকেই খুশি হন। কিন্তু কোন কারণ ছাড়া এমনিতেই যদি ওজন কমে তবে সাবধান হতেই হবে। ডায়াবেটিস ছাড়াও আরও কিছু অসুখে ওজন কমে। তাই ওজন কমলে ডাক্তার দেখান উচিত। ডায়াবেটিস হলে একটু পরপরই পানির তৃষ্ণা পায়। আর বেশি পানি খেলে বারবার মূত্রত্যাগ করার প্রয়োজন বোধ হয়। এটাই ডায়াবেটিসের মূল লক্ষণ বলে থাকেন অনেকে। রক্তে শর্করা বা চিনি বেড়ে গেলে অল্প পরিশ্রমেই শরীর ক্লান্তহয় যায়। ঘুম পায় বেশি এবং কাজে মনোযোগ দিতে কষ্ট হয়। মেজাজ খিটখিটে হয়ে যায় । ডায়াবেটিস হলে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা অনেক কমে যায়। ফলে শরীরে ফাংগাস ইনফেকশন সহ বিভিন্ন ইনফেকশন বেশি হয়। আর ব্লাড সুগার বেড়ে গেলে যেকোনো ধরনের ইনফেকশন সারতে অনেক বেশি সময় লাগে। ডায়াবেটিক রোগীরা খাওয়ার পরপরই আবার ক্ষুধা অনুভব করেন। বেশি খেয়েও কিন্তু ডায়াবেটিসে আক্রান্ত রোগীদের ওজন আস্তে আস্তে কমতে থাকে ।

শরীরে উপরোক্ত যেকোনো লক্ষণ দেখা দিলেই অবহেলা না করে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। দেরী করা যাবেনা । আমাদের দেশের বেশীরভাগ ডায়াবেটিসের রোগীরাই বিভিন্ন জটিলতা নিয়ে চিকিৎসকের কাছে হাজির হন। অনেকেই এমন সময় হাজির হন যে তখন আর তেমন কিছু করার থাকেনা। সবাইকেই তাই সচেতন হতে হবে। ডায়াবেটিস জীবনের জন্য হুমকি। আজকাল প্রায় সবজায়গায় স্বল্পখরচে ডায়াবেটিস ডায়াগনোসিস করা হয়। সন্দেহ হলেই সাথে সাথে পরীক্ষা করা উচিত।