ফেসবুকে আপনার তথ্য ফাঁস হয়েছে কিনা জানবেন যেভাবে

ফেসবুক ব্যবহারকারীদের তথ্য ফাঁস নিয়ে আলোচনা চলছে বিশ্বজুড়ে। সর্বশেষ বিশ্বের অন্তত ১০০টি দেশের প্রায় ৫৩ কোটি ৩০ লাখেরও বেশি গ্রাহকের ফেসবুক তথ্য ফাঁস হয়েছে। এর মধ্যে বাংলাদেশের ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৩৮ লাখেরও বেশি।

নিজের তথ্য ফাঁস হয়েছে কিনা এ নিয়ে উদ্বেগে আছেন ফেসবুক ব্যবহারকারীরা। ফলে ফাঁস হওয়া অ্যাকাউন্টগুলোর তালিকায় নাম আছে কিনা সেটি নিশ্চিত হতে চাচ্ছেন তারা। তথ্য ফাঁস বিষয়ে যারা নিশ্চিত হতে চান তাদের সহযোগিতা করতে এগিয়ে এসেছে ‘হ্যাভআইবিনপনড’ নামের একটি ওয়েবসাইট।

ইউরোপের প্রযুক্তিবিষয়ক সংবাদমাধ্যম টিএনডাব্লিউ এক প্রতিবেদনে জানায়, ফেসবুক ব্যবহারকারীদের তথ্য ফাঁসের ঘটনায় যেসব ই-মেইল আইডি উন্মুক্ত হয়েছে সেগুলোকে একসঙ্গে নিজেদের সাইটে আপলোড করেছে হ্যাভআইবিনপনড ডট কম। পাশাপাশি অন্যান্য সময় তথ্য ফাঁসের ঘটনায় উন্মুক্ত হওয়া ই-মেইল আইডিও এই তালিকায় স্থান পেয়েছে। ফাঁস হওয়া ই-মেইল আইডির তালিকায় আপনার মেইল আছে কিনা তা নিশ্চিত হতে ধাপগুলো অনুসরণ করুন-

১। প্রথমেই হ্যাভআইবিনপনড ডট কম সাইটে প্রবেশ করুন

২। এবার নির্ধারিত ঘরে আপনার ই-মেইল আইডি টাইপ করে পাশের অপশনে ক্লিক করতে হবে

৩। যদি আপনার ই-মেইল ফাঁস হয়ে থাকে তাহলে আপনি একটি সতর্ক বার্তা পাবেন

আপনার ই-মেইল ফাঁস হয়ে থাকলে সতর্কবার্তা পাওয়ার পর পরই পাসওয়ার্ড পরিবর্তন করতে হবে। একইসঙ্গে চালু করতে হবে টু-ফ্যাক্টর অথেনটিকেশন। এখান থেকে সতর্ক বার্তা পাওয়া মানে শুধু এবার নয়, অন্য যেকোনও ঘটনায় আপনার ই-মেইলটি ফাঁস হয়ে থাকতে পারে।

হ্যাভআইবিনপনড ডট কম ওয়েবসাইটের প্রতিষ্ঠাতা ই-মেইলের পাশাপাশি ফাঁস হওয়া ফোন নম্বরগুলোকেও একসঙ্গে আপলোডের বিষয়টি বিবেচনায় রেখেছে। ফোন নম্বরগুলো আপলোড করা হলে আপনি বুঝতে পারবেন ফাঁস হওয়া তথ্যের তালিকায় আপনার ফোন নম্বরটি আছে কিনা।

প্রসঙ্গত, এবার বিশ্বের অন্তত ১০০টি দেশের প্রায় ৫৩ কোটি ৩০ লাখেরও বেশি গ্রাহকের ফেসবুক তথ্য ফাঁস হওয়ার খবর সামনে এসেছে। এরমধ্যে বাংলাদেশের ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৩৮ লাখেরও বেশি। পাশের দেশ ভারতের তথ্য ফাঁস হওয়া ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৬১ লাখ।

এ বিষয়ে মার্কিন সংবাদমাধ্যম বিজনেস ইনসাইডারের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, বিশ্বের ১০৬টি দেশের ফেসবুক ব্যবহারকারীদের ব্যক্তিগত তথ্য ফাঁস হয়েছে। এর মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের ৩ কোটি ২০ লাখ, যুক্তরাজ্যের ১ কোটি ১০ লাখ এবং ভারতের ৬০ লাখেরও বেশি ফেসবুক ব্যবহারকারী তথ্য ফাঁসের তালিকায় রয়েছেন।