hasina

‌কোয়ারেন্টাইনের জন‌্য শত রুমের রিসোর্ট দিতে চান সিআইপি ড. যশোধা জীবন দেবনাথ।

270

করোনা ভাইরাসে দেশের জনজীবন বিপর্যস্ত। এই সময়ে মানুষ অনেক অসহায়। যারা দুবেলা কাজ করে খায়, তারাও আজ পেটের দায়ে বাড়ি থেকে বের হয়ে পারছে না। এমন সময় সরকার দেশের বিভিন্ন ব্যবসায়ীদেরকে এগিয়ে আসার জন্য উদাত্ত আহবান জানিয়েছেন। সেই ডাকে সাড়া দিয়েছে অনেক ব্যবসায়ী ও শিল্পপতি। এমন পরিস্থিতিতে সাধারন মানুষদের সাহাযার্থে সরকারের পাশে এসে দাড়িয়েছেন আরেকজন ব্যবসায়ী সিআইপি ড. যশোধা জীবন দেবনাথ।
তিনি তার গাজিপুরের বিশাল রিসোর্টটি করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসার সাহায্যে সরকারকে ছেড়ে দিতে চাচ্ছেন, যেখানে ১০০টিরও বেশি রুম রয়েছে। এছাড়াও তিনি তার ফরিদপুরের বাড়িটিকেও জেলা প্রশাসনের কাজে কোন সাহায্যে এলে তা ব্যবহার করতে বলেছেন।

এসব বিষয়ে টেলিফোনে জানতে চাইলে তিনি বিজনেস আইকে বলেন, ফেসবুকে স্ট্যাটাসের পর আমার প্রায় ২০ জন বন্ধু আমার সঙ্গে থেকে সাধারণ মানুষের জন্য সহযোগীতা করতে চেয়েছেন। যদি স্ট্যাটাস না দিতাম তাহলে এভাবে সাড়া পেতাম না। আমার কাছে আজকে প্রায় ১০০ পিপিই ও প্রায় ৫০০ মাস্ক এসে পৌছেছে। সেগুলোও আমি আগামীকাল সকালে ফরিদপুরের বিভিন্ন হাসপাতালে পৌছে দেয়ার চেষ্টা করবো। আর আমার রিসোর্টটি যদি কোনভাবে দেশের উপকারে আসতো, সরকার কাজে লাগাতো, তাহলে গর্ববোধ করতাম।’

তার রিসোর্ট ব্যবহার বিষয়ে সরকার থেকে কোন ধরনের যোগাযোগ হয়েছে কিনা জানতে চাইলে তিনি ‘না’ বলেন।

নিচে তার স্ট্যাটাসটি হুবহু তুলে ধরা হলো।

স্ট্যাটাস ১:

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি- গাজীপুর আমাদের রাজেন্দ্র ইকো রিসোর্ট লি: নামে একটি রিসোর্ট আছে, সেখানে ১০০ টির উপরে সুসজ্জিত রুম আছে। সরকার যদি ইচ্ছা পোষণ করেন বিনামূল্যে আমরা কোয়ারান্টাইন সেন্টারের জন্য রিসোর্টটি দিতে প্রস্তুত।

স্ট্যাটাস ২:
ডা. দেবনাথ ফরিদপুর জেলা প্রশাসকের দৃষ্টি আকর্ষণ করে তার আর একটি স্ট্যাটাসে বলেন, ফরিদপুর জেলা প্রশাসকের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি-আমার বাবার পৈত্রিক সম্পত্তি দান করেছিলাম একটি সরকারি স্কুল প্রতিষ্ঠার জন্য, পাশাপাশি ফরিদপুরের গণমানুষের শ্রদ্ধেয় নেতা এমপি ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন এর নির্দেশ ক্রমে একটি পুলিশ ফাঁড়ি করেছিলাম, যা এখন খালি পরে আছে। আমার গ্রামের বাড়িতে আমার মায়ের থাকার একটি ঘরও রয়েছে যার সবটাই ফরিদপুর বাসীর এই ক্রান্তিকালে কোয়ারান্টানের জন্য জেলা প্রশাসকের কাছে হস্তান্তর করতে চাই। বন্ধুরা, শুধু আমার মাকে আমার কাছে পাঠিয়ে দিও।