hasina

মোবাইল ইন্টারনেটের ব্যবহার ২৫ শতাংশ বেড়েছে

6

মোবাইল ইন্টারনেটের ব্যবহার ২৫ শতাংশ বেড়েছে, কথা বলার হার কমেছে

করোনাভাইরাসের কারণে সাধারণ ছুটি চলছে দেশে, মানুষ ঘরে বসেই সময় কাটাচ্ছে। প্রয়োজন ছাড়া বাইরে বের হচ্ছে না কেউ এক রকম ঘরবন্দী মানুষ। আর এর প্রভাব পড়েছে মোবাইল ফোন ব্যবহারে। এ সময়ে মোবাইল ইন্টারনেটের ওপর নির্ভরতা বেড়েছে গ্রাহকদের। ফলে মোবাইল ইন্টারনেটের ব্যবহার বেড়েছে ২৫ শতাংশ। তবে মুঠোফোনে কথা বলার হার কমেছে আগের তুলনায়।

‘ওয়ার্ক ফ্রম হোম’ চালুর পর থেকে অনলাইনে মিটিংয়ের (ভিডিও কনফারেন্স) হার বেড়েছে। বেড়েছে জুম, স্কাইপের ব্যবহার। অন্যদিকে শিক্ষার্থীদের মধ্যে গুগল স্কুল ব্যবহারের প্রবণতা বেড়েছে। গুগল থেকে এটা ডাউনলোড করে শিক্ষার্থীরা অনলাইনে পড়াশোনা করছে বলে জানা গেছে। এসব নানাবিধ কারণে বাসায় ইন্টারনেট ব্যবহার বেড়েছে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, বেশি বিপদে পড়েছে করপোরেট ইন্টারনেট সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলো। সব অফিস (গার্মেন্ট, বায়িং হাউজ, ব্রোকারেজ হাউজ, ট্রাভেল এজেন্ট ইত্যাদি) বন্ধ হয়ে যাওয়ায় করপোরেট খাতে ব্যান্ডউইথের ব্যবহার প্রায় শূন্যে নেমে গেছে। বাসাবাড়িতে ব্যান্ডউইথের চাহিদা বাড়লেও আইএসপিগুলো পরিচালন ব্যয় বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কায় ব্যান্ডউইথ আপগ্রেড করছে না। ফলে ব্রডব্যান্ড (উচ্চগতি) ইন্টারনেটের ব্যবহার বাড়েনি। বরং মোট ব্যবহার কমে যেতে পারে বিরাট অংকের।