দীর্ঘস্থায়ী অর্থনৈতিক মন্দার মুখে দাড়িয়ে বিশ্ব

8

কি হবে করোনায় আমাদের অর্থনীতির? এটা নিশ্চিত
করোনা মহামারীর কারণে সমগ্র বিশ্ব প্রায় নিশ্চিতভাবেই চরম অর্থনৈতিক মন্দায় জড়িয়ে পড়বে। বিভিন্ন দেশ মহামারীটি প্রতিরোধের জন্য ব্যবসা-বাণিজ্যের উপর নিষেধাজ্ঞা আরও কঠোর করার ফলে এখন আশঙ্কা বাড়ছে যে, অর্থনৈতিক মন্দাটি প্রাথমিকভাবে পরবর্তী বছর পর্যন্ত স্থায়ী হওয়ার পরিবর্তে সম্ভবত আরো বেশি পীড়াদায়ক এবং দীর্ঘস্থায়ী হতে যাচ্ছে। হার্ভার্ডের অর্থনীতিবিদ ও আর্থিক সঙ্কটের ইতিহাসের সহ-লেখক কেনেথ এস. রোগফ বলেছেন, ‘এটি ইতিমধ্যে ১শ’ বছরেরও বেশি সময়ের বিশ্ব অর্থনীতির ইতিহাসের গভীরতম ক্ষতের রূপ নিতে শুরু করেছে।’

যুক্তরাষ্ট্র, বিশ্বের বৃহত্তম অর্থনীতি, প্রায় নিশ্চিত মন্দার মধ্যে পড়েছে। ইউরোপও তাই। সম্ভবত একই অবস্থা কানাডা, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, সিঙ্গাপুর, ব্রাজিল, আর্জেন্টিনা এবং মেক্সিকো’র মতো গুরুত্বপূর্ণ অর্থনৈতিক দেশগুলোর।

গবেষণা সংস্থা টিএস লম্বার্ডের মতে, চীন, বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থনীতিতে চলতে বছরে মাত্র ২ শতাংশ প্রবৃদ্ধি ঘটবে বলে আশা করা হচ্ছে। প্রণোদনা প্যাকেজগুলির কার্যকারিতা সম্পর্কেও নিশ্চিত হওয়ার সুযোগ নেই। কারণ, সাধারণ অর্থনৈতিক ধাক্কায় সরকারগুলো জনগণকে বাইরে গিয়ে ব্যয় করতে উৎসাহিত করার জন্য প্রণোদনা অর্থ ব্যয় করে। কিস্তু করোনা মহামারীর এই সঙ্কটে কর্তৃপক্ষগুলি ভাইরাসকে সীমাবদ্ধ করার জন্য মানুষকে অনির্দিষ্টকালের জন্য ঘরের ভেতর অবস্থানের আদেশ করছে।

জাতিসংঘের বাণিজ্য ও উন্নয়ন বিষয়ক সম্মেলন সংস্থার তথ্য অনুসারে বিশ্বব্যাপী বিদেশী প্রত্যক্ষ বিনিয়োগ চলতি বছরে ৪০ শতাংশ হ্রাস পাবে। সংস্থাটির বিনিয়োগ এবং উদ্যোগ বিষয়ক পরিচালক জেমস য্যান বলেছেন, ‘এটি বিশ^জনীন উৎপাদন এবং সরবরাহ কাঠামোর উপর একটি দীর্ঘস্থায়ী ক্ষতির হুমকি স্বরূপ।’

মার্কিন বাণিজ্য সংস্থা কর্তৃক সোমবার প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, উন্নয়নশীল দেশগুলিকে এখন থেকে আগামী বছরের শেষের মধ্যে প্রায় ২.৭ ট্রিলিয়ন ডলার ঋণ শোধ করতে হবে। সাধারণ সময়ে তারা ঋণের বেশিরভা পরিমাণ নবায়ণ করতে পারে।

চাইনিজ কারখানাগুলি যদি প্রাণ ফিরে পায়, সেই স্পন্দন বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়বে। তাইওয়ানে তৈরি কম্পিউটার চিপস, জাম্বিয়ার খনি থেকে তোলা তামা এবং আর্জেন্টিনায় উৎপাদিত সয়াবিনের চাহিদা বাড়িয়ে তুলবে। কিন্তু চীনের উৎপাদন শিল্প বৈশ্বিক বাস্তবতা প্রতিরোধক নয়। আমেরিকানরা যদি মহামারী নিয়ে এখনও লড়াই করতে থাকে, যদি দক্ষিণ আফ্রিকা বিশ্ব বাজারে থেকে ঋণ নিতে না পারে এবং যদি ইউরোপে মন্দা হয়, তবে বিশ^ব্যাপী চীনা পণ্যের চাহিদা সীমিত হয়ে যাবে।

অর্থনৈতিকভাবে বিপর্যস্ত, সমস্যায় জর্জরিত করোনা পরবর্তী পৃথিবীকে পুনরুদ্ধার করা কঠিন হয়ে পড়বে।