জীবনে এমন সময় আসবে তা কল্পনাও করি নাই: জাহিদ হাসান

10

বছরের অন্যান্য সময়ের চেয়ে এই সময়ে বেশি ব্যস্ত থাকেন শোবিজের তারকারা। কারণ এই সময়ে বৈশাখ ও ঈদের জন্য নির্মিত প্রোডাকশন নিয়ে ব্যস্ত থাকেন। কিন্তু চলতি বছরের চিত্র একেবারেই ভিন্ন। করোনাভাইরাসের প্রকোপের কারণে বন্ধ রয়েছে সব ধরনের শুটিং। তারকারাও দিনযাপন করছেন অবসরে। তেমনি একজন জাহিদ হাসান, কী করছেন বাসায় তিনি? জানা গেছে, বাসায় অবসর সময়ে এই অভিনেতা স্ত্রী-সন্তানদের সঙ্গে থেকে পারিবারিক আবহে সময় কাটাচ্ছেন। ঘরের গৃহস্থালির কাজে সহযোগিতা করছেন স্ত্রীকে। এছাড়া মাঝে-মধ্যে রান্নার কাজও করছেন। বাকি সময়গুলোতে টিভিতে পছন্দের অনুষ্ঠান দেখার পাশাপাশি বই পড়ারও চেষ্টা করছেন। অনেকটা আক্ষেপের স্বরে তিনি জানান, কাজের ক্ষেত্রে এপ্রিলের তৃতীয় সপ্তাহ পর্যন্ত টানা শিডিউল ছিল তার। কিন্তু করোনার কারণে শুটিং স্থগিত। এছাড়া স্ত্রী এবং দুই সন্তান নিয়ে চলতি মাসেই অভিনেতার কানাডায় যাওয়ার কথা ছিল। সে পরিকল্পনাও ভেস্তে গেছে। গৃহবন্দি হওয়ার আগে গত ১৮ মার্চ শেষ একটি নাটকের শুটিং করেন তিনি। তারপর পুরোপুরি গৃহবন্দি।

জাহিদ হাসান বলেন, ‘জীবনে এমন সময় আসবে তা কল্পনাও করিনি। আমার কর্মজীবনে এত অবসর আগে পাইনি। নতুন অভিজ্ঞতা যেন আর দীর্ঘ না হয় সেই প্রার্থনাই করছি। যেহেতু ঘর থেকে বের হওয়ার সুযোগ নেই তাই ঘরে বসে কিছু কাজ করার চেষ্টা করছি। আমার স্ত্রী মৌ’য়ের কাজে সহযোগিতা করছি। মাঝে-মধ্যে রান্নার কাজও করছি। বাড়ির বাইরে না গেলেও ফোনের মাধ্যমে সহকর্মীদের খোঁজ রাখছি। এ বিপদের সময়ে যেন সবাই সবাইকে সহযোগিতা করতে পারি, সেই বিষয়টিও খেয়াল রাখছি।’

মহামারি করোনাভাইরাস আমাদের চরম শিক্ষা দিয়ে যাচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন দেশের অন্যতম আলোচিত অভিনেতা ও নির্দেশক জাহিদ হাসান। তার কথায়, ‘করোনা আমাদের চরম শিক্ষা দিয়ে যাচ্ছে। এই শিক্ষা যেন আমরা সব সময় মেনে চলি। নিয়মিত হাত ধোব, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকব, মানবতা দেখাব, হিংসা-বিদ্বেষ ভুলে যাব। অহেতুক মানুষকে হয়রানি করব না বা বিপদে ফেলব না। তাহলেই ভবিষ্যৎ সুন্দর হবে।’