করোনায় বাফুফের ক্ষতি সাত কোটি!

4

স্থবির প্রায় সবকিছুই, একই দশা ক্রীড়াঙ্গনেও। কবে পরিস্থিতি ঠিক হবে, তা বলতে পারছে না কেউই। দিন দিন চলমান পরিস্থিতিতে ক্ষতি মাত্রা বেড়েই চলছে। ভারতীয় গনমাধ্যমের দাবি করোনায় দেউলিয়া হয়ে যেতে পারে বিসিবি ও পিসিবি। যদিও ভারতের এই দাবিকে প্রত্যাখান করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। পাঁচ বছরেও দেউলিয়া হওয়ার সম্ভাবনা নাই বিসিবির। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে এই ক্ষতি কাটিয়ে উঠা সম্ভব বলে দাবি করেছেন তারা।
চলমান পরিস্থিতিতে বিরাট ক্ষতির সম্মুক্ষিণ হচ্ছে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনও (বাফুফে)।

বাফুফে দাবি করছে, চলমান পরিস্থিতিতে তাদের ক্ষতি হয়েছে ৫ থেকে ৭ কোটি টাকা!
করোনার আগে প্রিমিয়ার ফুটবল লীগ, মেয়েদের ফুটবল লীগসহ চলছিল জাতীয় চ্যাম্পিয়নশিপ ও স্কুল ফুটবল। এছাড়া পেশাদার ফুটবলের দ্বিতীয় স্তর চ্যাম্পিয়নশিপ লীগের দলবদলও শুরু হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু করোনার প্রকোপে সবকিছু এখন স্থগিত। যে কারণে বড় রকমের আর্থিক ক্ষতির মধ্যে পড়েছে বাফুফে।

বাফুফের সাধারণ সম্পাদক আবু নাঈম সোহাগ বলেছেন, ‘আমাদের যে লীগগুলো চলছিল। এছাড়া স্কুলসহ অন্য যে প্রতিযোগিতাগুলো ছিল, সবই এখন বন্ধ। করোনার কারণে কবে আবার এগুলো শুরু হবে, তা বলা কঠিন। এর জন্য আমরা ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছি। বলতে পারেন, সবকিছুর জন্য পাঁচ থেকে সাত কোটি টাকা ক্ষতি হয়েছে।’

আর্থিক ক্ষতির বিষয়ে ফিফা ও এএফসিকে জানানো হয়েছে। এমন তথ্য দিয়ে সোহাগ বলেন, ‘এই আর্থিক ক্ষতির বিষয়ে আমরা ফিফা ও এএফসিকে জানিয়েছি। এখন দেখা যাক সেখান থেকে কোনও সহযোগিতা পাই কি না। তার ওপর প্রিমিয়ারের ক্লাবগুলো আর্থিক সহযোগিতা চেয়েছে। আশা করছি, ফিফা-এএফসি থেকে ইতিবাচক সাড়া পাবো।’

অবশ্য এরই মধ্যে করোনা ইস্যুতে ফিফা তার প্রত্যেক সদস্য দেশকে পাঁচ লাখ ডলার দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে। এ বিষয়ে বাফুফের সাধারণ সম্পাদকের ব্যাখ্যা, ‘আমরা বার্ষিক বরাদ্দ যেটা পেতাম, তারই একটি অংশ আগে-ভাগে পাচ্ছি। করোনার জন্য অতিরিক্ত কোনও অর্থ পাচ্ছি না। এই অর্থের হিসেবও দিতে হবে আগের মতোই। এই অর্থ দিয়ে আমাদের দৈনন্দিন যে খরচ আছে, সেটা মেটানো হবে।’