ভারতকে চাঙ্গা করতে দরকার বড়সড় আর্থিক প্যাকেজ

8

ভারতে লকডাউন চলার সময় এবং তা উঠে যাওয়ার পর দরিদ্র মানুষের জন্য বড়সড় আর্থিক প্যাকেজ ঘোষণার প্রয়োজনীয়তার ওপরও জোর দিয়েছেন নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ অভিজিৎ বিনায়ক বন্দোপাধ্যায়। তিনি বলেছেন, লকডাউন চলার সময় রেশন কার্ড পাওয়ার জন্য যেই আবেদন করবে, যত দ্রম্নত সম্ভব এখন তার হাতে পৌঁছে দিতে হবে। মঙ্গলবার এক ভিডিও কলে কংগ্রেস এমপি রাহুল গান্ধীকে এই পরামর্শ দিয়েছেন তিনি। সংবাদসূত্র : এবিপি নিউজ, টাইমস অব ইনডিয়া

করোনা পরিস্থিতির কারণে ভারতের গভীর অর্থনৈতিক সংকট ও তা থেকে বেরিয়ে আসার উপায় নিয়ে গত সপ্তাহে দেশটির রিজার্ভ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ও অর্থনীতিবিদ রঘুরাম রাজনের সঙ্গে ভিডিও কলে কথা বলেছিলেন রাহুল। এদিন সকালে রাহুল কথা বলেন অভিজিতের সঙ্গে।

কংগ্রেস সূত্রের খবর, সেই কথোপকথনে রাহুলকে অভিজিৎ বলেছেন, ‘পুনরুজ্জীবনের জন্য এখন ভারতবাসীর প্রয়োজন বড়সড় আর্থিক প্যাকেজ। কিন্তু এখন পর্যন্ত তেমন কোনো প্যাকেজ ঘোষণা করা হয়নি।’ এ ছাড়াও দরিদ্র মানুষ যাতে নিয়মিত রেশন পায়, সে দিকেও নজর রাখাটা এখন খুব জরুরি বলে রাহুলকে স্মরণ করিয়ে দেন অভিজিৎ।

করোনা সংকট মোকাবিলায় আর কী কীভাবে ভারতের অর্থনীতিকে পুনরুজ্জীবিত করা যায়, রাহুলকে সে ব্যাপারেও অভিজিৎ অনেক পরামর্শ দিয়েছেন বলে কংগ্রেস সূত্রে জানা গেছে। অন্যান্য প্রাকৃতিক বিপর্যয় মোকাবিলায় অর্থনৈতিক পুনরুজ্জীবনের জন্য ভারতের কীভাবে এগোনো উচিত, রাহুলকে তারও একটি রূপরেখা দিয়েছেন অভিজিৎ। উলেস্নখ্য, গত সপ্তাহে অর্থনীতিবিদ রঘুরাম রাজনেরও পরামর্শ নিয়েছিলেন রাহুল। রাজন অবিলম্বে ৬৫ হাজার কোটি রুপির আর্থিক প্যাকেজ ঘোষণার প্রয়োজনীয়তার ওপর জোর দিয়েছিলেন।

ছাপিয়ে গেল সব রেকর্ড, ভারতে ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত ৩৯০০

এদিকে, দিন যত এগোচ্ছে ভারতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ততই বাড়ছে। মোট আক্রান্তের সংখ্যা তো বাড়ছেই, সঙ্গে পালস্না দিয়ে বাড়ছে ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্তের সংখ্যাও। নতুন আক্রান্তের সংখ্যায় প্রতিদিন রেকর্ড তৈরি হচ্ছে। এরই মধ্যে ভারতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৪৬ হাজার ছাড়িয়ে গেছে। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের প্রতিবেদন অনুযায়ী, দেশটিতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৪৬ হাজার ৪৭৬। আর ২৪ ঘণ্টায় নতুন আক্রান্তের সংখ্যা এক লাফে দাঁড়িয়েছে তিন হাজার ৯০০। যা আগের সব রেকর্ডকে ছাপিয়ে গেছে। সোমবারই এই সংখ্যাটা ছিল দুই হাজার ৫৫৩।

পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মৃতু্যর সংখ্যাও। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে মৃতু্য হয়েছে ১৯৫ জনের। একদিনে মৃতু্যর হিসাবে এটাও সর্বোচ্চ। ফলে ভারতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে এক হাজার ৫৭১। কিছুটা স্বস্তি এই, ১২ হাজার ৭২৭ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছে।

ভারতে সবচেয়ে ভয়াবহ পরিস্থিতি মহারাষ্ট্র, গুজরাট ও দিলিস্নতে। মহারাষ্ট্রে আক্রান্তের সংখ্যা সাড়ে ১৪ হাজার ছাড়িয়ে গেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছে দুই হাজার ২৪৫ জন। আক্রান্তের সংখ্যায়ও শীর্ষে মহারাষ্ট্র। আবার, সবচেয়ে বেশি মৃতু্য হয়েছে এই রাজ্যেই। এখন পর্যন্ত মারা গেছে ৫৮৩ জন। দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে গুজরাট। তৃতীয় স্থানে দিল্লি।