hasina

অসহায় মানুষের পাশে ‘আইপিডিসি মানবতা’

2

বৈশ্বয়িক মহামারি করোনাভাইরাসের প্রার্দুভাব মোকাবিলায় সরকার ঘোষিত সাধারণ ছুটির মধ্যেও গ্রাহক সেবা দিযে যাচ্ছে বাংলাদেশের প্রথম আর্থিক প্রতিষ্ঠান আইপিডিসি ফাইন্যান্স। এ সংকটময় পরিস্থিতিতেও গ্রাহকদের আর্থিক সেবা নিশ্চিত করতে কর্ম দিবসগুলোতে সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত বাসা থেকে কাজ করে যাচ্ছেন আইপিডিসি’র কর্মীরা। এরই ধারাবাহিকতায় আইপিডিসি পবিত্র রমজান মাসে অসহায় ও সুবিধাবঞ্চিত পরিবারের জন্য নিয়ে এসেছে বিশেষ উপহার ‘আইপিডিসি মানবতা’।

যার মাধ্যমে আইপিডিসির ডিপোজিটকারীরা পাচ্ছেন আর্থিক সুরক্ষার নিশ্চয়তা ও সুবিধাবঞ্চিত পরিবারের পাশে দাঁড়ানোর সুযোগ। আইপিডিসি ও ডিপোজিটকারীদের সম্মিলিত অংশগ্রহণের মাধ্যমে প্রতি এক লাখ টাকা ডিপোজিটের বিনিময়ে একটি অসহায় পরিবার পাবে এক মাসের খাবার। ব্যক্তিগত ও প্রাতিষ্ঠানিক উভয় প্রকার ডিপোজিটের ক্ষেত্রেই এ সুবিধা প্রযোজ্য।

আইপিডিসি কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, এ মুহূর্তে গ্রাহকদের আর্থিক নিরাপত্তার বিষয়টিকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। লকডাউন শুরু হওয়ার সময় নির্ধারিত তারিখের আগেই গ্রাহকদের কাছে ডিপোজিটের অগ্রিম ইন্টারেস্ট পরিশোধ করেছে। দেশের এই কঠিন পরিস্থিতিতে গ্রাহকরা যাতে নিশ্চিন্তে ঘরে থাকতে পারেন, সে জন্য আইপিডিসি এ বিশেষ উদ্যোগ নিয়েছে।

কোভিড-১৯ সংক্রমণের প্রভাবে দুস্থ ও অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে আইপিডিসি ফাইন্যান্স। আইপিডিসি কর্তৃপক্ষ ও সব কর্মচারীদের সম্মিলিত অংশগ্রহণে গঠিত ‘জরুরি তহবিল’ থেকে ২০ লাখ টাকার অধিক ব্র্যাকের ত্রাণ তহবিলে দেওয়া হয়েছে।

কর্তৃপক্ষ অরো জানিয়েছে, আইপিডিসি দেশের সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ দরিদ্র ও অসহায় মানুষের পাশে থাকার জন্য মিশন সেভ বাংলাদেশ, জাগো ফাউন্ডেশন, জাতীয় রবীন্দ্র সঙ্গীত সম্মিলন পরিষদ এবং নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশনের সঙ্গে যুক্ত হয়ে খাদ্য ও পণ্য সহায়তা দিয়েছে।

এর মধ্যে নড়াইলের দুস্থ ও অসহায় মানুষকে সহয়তা করতে নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশনের সঙ্গে নিবিড়ভাবে কাজ করছে প্রতিষ্ঠানটি। ইতোমধ্যে নড়াইলের ৬ শতাধিক পরিবারকে খাদ্য ও প্রয়োজনীয় পণ্য সহায়তা প্রদান করা করেছে। একইসঙ্গে জাগো ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে এক সপ্তাহের জন্য ৩৫৩ পরিবারকে ৩ লাখ টাকার খাদ্য-পণ্য পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। আর এ সংকটকালে দেশের প্রান্তিক পর্যায়ে উপার্জনে অক্ষম শিল্পীদের আর্থিক সহায়তা দিয়েছে আইপিডিসি।