লকডাউনে ইউরোপে ৩০ লাখ মানুষের প্রাণরক্ষা

ইমপেরিয়াল কলেজ লন্ডনের গবেষণা

3

ইমপেরিয়াল কলেজ লন্ডনের নতুন এক গবেষণায় বলা হয়েছে, কঠোর লকডাউন আরোপ করায় ইউরোপিয়ান ১১ টি দেশে কমপক্ষে ৩০ লাখ মানুষের মৃত্যু রোধ করা গেছে। ইমপেরিয়াল কলেজ লন্ডনের বিজ্ঞানীরা বৃটিশ সরকারকে করোনা ভাইরাসের বিষয়ে উপদেশ, পরামর্শ দিচ্ছেন। তারা বলেছেন, ঘরে থাকার নির্দেশ কাজ করেছে। এর ফলে করোনা ভাইরাসের বিস্তার নিয়ন্ত্রণে আনতে সহায়ক হয়েছে। এর ফলে জার্মানি, ফ্রান্স, ইতালি, বৃটেন, স্পেন, বেলজিয়াম, অস্ট্রিয়া, ডেনমার্ক, নরওয়ে, সুইডেন ও সুইজারল্যান্ডে প্রায় ৩১ লাখ মানুষের জীবন রক্ষা পেয়েছে। এ খবর দিয়েছে অনলাইন আল জাজিরা।

ইমপেরিয়াল কলেজ লন্ডন ৪ঠা মে পর্যন্ত ওই ১১টি দেশ থেকে করোনা ভাইরাসে মারা যাওয়া সম্পর্কিত ডাটা সংগ্রহ করেছে ইউরোপিয়ান সেন্টার অব ডিজিজ কন্ট্রোল থেকে। এরপর যেসব দেশে লকডাউন দেয়া হয় নি, সেখানকার মৃতের সংখ্যার সঙ্গে ওই দেশগুলোর মৃতের সংখ্যার তুলনা করে গাণিতিক মডেল দাঁড় করানো হয়েছে।

গবেষকরা আরো হিসাব করে দেখেছেন যে, এই হস্তক্ষেপের ফলে সংক্রমণ গড়ে শতকরা ৮২ ভাগ কমে একের নিচে নেমে এসেছে।

নেচার রিসার্সে প্রকাশিত হয়েছে এই গবেষণা রিপোর্ট। এতে গবেষকরা বলেছেন, আমাদের রেজাল্ট বলছে যে, ফার্মাসিউটিক্যাল সম্পর্কিত নয় এমন হস্তক্ষেপ এবং বিশেষ করে লকডাউনের ফলে সংক্রমণ বিপুল পরিমাণে কমতে সহায়ক হয়েছে। তাই কোভিড-১৯ কে নিয়ন্ত্রণে রাখতে এই হস্তক্ষেপ বা কড়াকড়ি অব্যাহত রাখার পক্ষে মত দিয়েছেন বিজ্ঞানীরা।

গবেষকরা দেখিয়েছেন, যদি কোনো ব্যবস্থা নেয়া না হতো তাহলে ওই ১১টি দেশে মে মাসের শুরুর দিকে এক কোটি ২০ লাখ থেকে এক কোটি ৫০ লাখ মানুষ করোনা ভাইরাসে সংক্রমিত হতেন, যা তাদের জনসংখ্যার শতকরা ৩.২ ভাগ থেকে ৪ ভাগ।