করোনা: সুস্থ ৪৫ লাখেরও বেশি মানষ

16

নভেল করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে বিশ্বের ২১৩টি দেশ ও অঞ্চলে। এতে প্রতিনিয়ত মৃতের সংখ্যা বাড়ছে, বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যাও। তবে সুস্থ হয়ে উঠার সংখ্যাও কিন্তু কম নয়। এ পর্যন্ত ৪৫ লাখেরও বেশি মানুষ সুস্থ হয়েছেন।

ওয়ার্ল্ডোমিটারের সর্বশেষ পরিসংখ্যান থেকে জানা যায়, এ পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন বিশ্বের মোট ৮৫ লাখ ৭৮ হাজার ৮৮৯ জন। এখন পর্যন্ত এই ভাইরাসে মৃত্যু হয়েছে ৪ লাখ ৫৬ হাজার ২৯২ জনের। তবে ইতোমধ্যে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছে ৪৫ লাখ ৩০ হাজার ৩৬৮ জন।

অর্থাৎ এখনও বিশ্বে করোনায় মৃত্যুর তুলনায় সুস্থ হয়ে উঠাদের সংখ্যা ১০ গুণ। এই পরিসংখ্যান আমাদের আশার আলো দেখায়।

২০১৯ এর ডিসেম্বরে চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহরে প্রথম হামলা হয়েছিল করোনার। চীন থেকে ইরান হয়ে ইউরোপের ইতালি, স্পেন, ফ্রান্স, ইংল্যান্ড, জার্মানিসহ বিভিন্ন দেশে মরণ কামড় বসিয়েছে করোনা।

ইউরোপকে তছনছ করার মধ্যেই উত্তর আমেরিকায় হামলা শুরু করে করোনা। এই ভাইরাসে যুক্তরাষ্ট্রে মারা গেছে মোট ১ লাখ ২০ হাজার ৬৮৮ জন। দেশটিতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে সাড়ে ২২ লাখের বেশি।

বর্তমানে সবচেয়ে ভয়াবহ অবস্থা দক্ষিণ আমেরিকার দেশ ব্রাজিলের। বৃহস্পতিবারও সেখানে ২৩ হাজারের বেশি আক্রান্ত এবং আরও ১ হাজার ২০৪ জন মারা গেছে। ফলে দেশটিতে মোট আক্রান্ত বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৯ লাখ ৮৩ হাজার ৩৫৯ জন। আর মোট মারা গেছেন ৪৭ হাজারের বেশি মানুষ। দেশটিতে সুস্থ হওয়ার সংখ্যাও তুলনামূলক কম। সেখানে মোট সুস্থ হয়েছেন ৫ লাখের বেশি মানুষ। আর চিকিৎসাধীন রয়েছে ৪ লাখ ১৫ হাজার ১৩০ জন।

স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের আশঙ্কা এই অবস্থা চলতে থাকলে কিছুদিনের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের জায়গা দখল করে নেবে দেশটি। করোনা তালিকায় দীর্ঘদিন ধরে শীর্ষে রয়েছে ট্রাম্পের দেশ।

প্রসঙ্গত, বিশ্বে সবচেয়ে বেশি সুস্থ হওয়ার ঘটনা ঘটেছে জার্মানিতে। সেখানে এ পর্যন্ত ১ লাখ ৯০ হাজারের বেশি মানুষ আক্রান্ত হয়েছে। এদের মধ্যে ১ লাখ ৭৪ হাজার ১শ জনই সুস্থ হয়েছেন। মারা গেছেন প্রায় ৯ হাজার মানুষ। বর্তমানে দেশটিতে সক্রিয় করোনা রোগীর সংখ্যা মাত্র ৭ হাজার ৪০ জন।

এছাড়া সুস্থ হওয়ার তালিকায় এগিয়ে রয়েছে দক্ষিণ কোরিয়া, তুরস্ক ও রাশিয়ার মতো দেশগুলো।

এদিকে করোনা তালিকার সেরা পাঁচে থাকা বাকি তিনটি দেশ হচ্ছে যথাক্রমে রাশিয়া (আক্রান্ত ৫ লাখ ৬১ হাজার ৯১ জন; মৃত্যু ৭ হাজার ৬৬০ জন, ভারত (আক্রান্ত ৩ লাখ ৮১ হাজার ৯১ এবং মৃত্যু ১২ হাজার ৬০৪ জন) যুক্তরাজ্য (আক্রান্ত মোট ৩ লাখ ৪৬৯ জন ও মৃত্যু ৪২ হাজার ২৮৮জন) ও স্পেন (আক্রান্ত ২ লাখ ৯২ হাজার ৩৪৮ জন ও মৃত্যু ২৭ হাজারের বেশি)।

আফ্রিকার কিছু দেশেও বাড়ছে সংক্রমণ ও মৃত্যু। তবে আপাতত নিরাপদ অস্ট্রেলিয়া এবং ওশেনিয়া মহাদেশ।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) রিপোর্ট বলছে, এবার দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলি যেমন, ভারত, পাকিস্তান, বাংলাদেশে করোনার সামাজিক সংক্রমণ ও মৃত্যু রীতিমতো উদ্বেগ তৈরি করছে।

বাংলাদেশে প্রতিদিনই আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যায় রেকর্ড ভাঙছে। বৃহস্পতিবার আরও ৩ হাজার ৮০৩ জন করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে দেশে মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১ লাখ ২ হাজার ২৯২ জনে। এদিন আরও ৩৮ জনের মৃত্যুর মধ্য দিয়ে মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৩৪৩ জনে। আর মোট সুস্থ হয়েছে ৪০ হাজার ১৬৪ জন।