ডেসকোর ৩য় প্রান্তিক প্রকাশ ও মূলধন বাড়ানোর সিদ্ধান্ত

22

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানি ডেসকো লিমিটেড ৩১ মার্চ, ২০২০ তারিখে সমাপ্ত তৃতীয় প্রান্তিকের (জানুয়ারি’২০-মার্চ’২০) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।

বুধবার (২৪ জুন) অনুষ্ঠিত কোম্পানির পরিচালনা পর্ষদের সভায় আলোচিত প্রতিবেদন পর্যালোচনা ও অনুমোদনের পর তা প্রকাশ করা হয় এবং মূলধন বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। কোম্পানি সূত্রে এই তথ্য জানা গেছে।

অনিরীক্ষিত প্রতিবেদন অনুসারে, চলতি হিসাববছরের তৃতীয় প্রান্তিকে ডেসকোর শেয়ার প্রতি আয় লোকসান হয়েছে ৭০ পয়সা। গত বছরের একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় ছিল ২৩ পয়সা।

অন্যদিকে প্রথম তিন প্রান্তিকে তথা ৯ মাসে (জুলাই’১৯-মার্চ’২০) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ৩৭ পয়সা। গত বছরের একই সময়ে তা ছিল ১ টাকা ৯৮ পয়সা।

তিন প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি নগদ অর্থের প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) ছিল ৩ টাকা ৫৫ পয়সা। আগের বছরের একই সময়ে ক্যাশ ফ্লো ছিল ৪ টাকা ৬০ পয়সা।

গত ৩১ মার্চ, ২০২০ তারিখে শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ছিল ৪৬ টাকা ৬৭ পয়সা।

এদিকে অনুমোদিত মূলধন বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে ডেসকো। কোম্পানিটি এই মূলধন ৫০০ কোটি টাকা থেকে বাড়িয়ে ২ হাজার কোটি টাকায় উন্নীত করবে।

অনুমোদিত মূলধন বাড়ানোর জন্য শেয়ারহোল্ডারদের সম্মতির প্রয়োজন হবে। এ কারণে কোম্পানি বিশেষ সাধারণ সভার (ইজিএম) আয়োজন করবে, আর তার আলোচ্যসূচি বা এজেন্ডার মধ্যে এটি অন্তর্ভূক্ত করা হবে।

শেয়ারহোল্ডারদের সম্মতি পাওয়া গেলে কোম্পানির সংঘবিধি ও সংঘস্মারক পরিবর্তন করে যৌথ মূলধনী কোম্পানিসমূহের পরিদপ্তরের নিবন্ধকের কাছ থেকে অনুমোদন করিয়ে নিতে হবে।

বর্তমানে ডেসকোর পরিশোধিত মূলধন ৩৯৭ কোটি ৫৭ লাখ টাকা। পরিশোধিত মূলধন ৫শ কোটি টাকা পর্যন্ত বাড়াতে চাইলে কোনো সমস্যা নেই। কিন্তু এর বেশি বাড়াতে চাইলে অনুমোদিত মূলধন সীমায় আটকে যাবে। তাই কোম্পানিটি আগে থেকেই অনুমোদিত মূলধন বাড়িয়ে রাখতে চাইছে।