শেয়ার নিয়ে কারসাজি, অতঃপর প্রায় ৫ কোটি টাকা জরিমানা

31

কাসেম ড্রাইসেল লিমিটেডের শেয়ারের দাম কৃত্রিমভাবে বাড়িয়ে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের ঠকিয়ে মুনাফা অর্জন করায় তিন প্রতিষ্ঠান sিও ২ ব্যক্তিকে মোট ৪ কোটি ৯০ লাখ টাকা জরিমানা করেছে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা

বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) তাদের নিয়মিত কমিশন সভায় জরিমানার এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

নারায়ণ চন্দ্র পাল অ্যান্ড অ্যাসোসিয়েটসকে ৩ কোটি টাকা, প্রাইম ইসলামী সিকিউরিটিজ লিমিটেডকে ১ কোটি ৫০ লাখ টাকা, সোলায়মান রুবেল অ্যান্ড অ্যাসোসিয়েটসকে ১০ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এ ছাড়া মো. মাহমুদুজ্জামানকে ও মহিবুল ইসলামকে ৩০ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। প্রকৌশল খাতে তালিকাভুক্ত কাসেম ড্রাইসেল লিমিটেডের বর্তমান নাম কাশেম ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড।

বিএসইসি জানিয়েছে, সাজাপ্রাপ্তরা ২০১৫ সালের ২৯ অক্টোবর থেকে ২০১৬ সালের ৫ জানুয়ারির মধ্যে এই কারসাজি করেছে। তখন দুই মাসে কাশেম ড্রাইসেলের শেয়ারের দাম ৬৯ টাকা ৬০ পয়সা থেকে বাড়িয়ে ১৩১ টাকা ৭০ পয়সায় নিয়ে গিয়েছিল। সাজাপ্রাপ্তরা কৃত্রিমভাবে লেনদেন করে শেয়ারের দাম বাড়িয়ে তা বিনিয়োগকারীদের কাছে বিক্রি করে বাজার থেকে সরে গিয়েছিল বলে বিএসইসি প্রমাণ পেয়েছে।

যেহেতু শেয়ারের দাম তার মৌল ভিত্তির সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ ছিল না, ফলে তা কমে গিয়েছিল। তাতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল অনেক বিনিয়োগকারী। কমিশন বিভিন্ন আইন ভঙ্গ করার কারণে ৭টি ব্রোকারেজ হাউসকে সতর্ক করার সিদ্ধান্ত নেয়েছে।

ব্রোকারেজ হাউসগুলো হল- এসিই ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্ট সার্ভিসেস, রিল্যায়েন্স ব্রোকারেজ সার্ভিসেস লিমিটেড, এসআর ক্যাপিটাল লিমিটেড, প্রিমিয়ার লিজিং সিকিউরিটিজ ব্রোকিং লিমিটেড, লতিফ সিকিউরিটজ লিমিটেড, এসআইবিএল সিকিউরিটজ লিমিটেড এবং কাইউম সিকিউরিটিজ লিমিটেড।

সূত্র: যায়যায়দিন